আজ শুক্রবার, ৭ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত খুলনার কয়রাসহ ৫ উপজেলার মাছ চাষী

  • খুলনার মৎস্য খাতে আর্থিক ক্ষতি প্রায় ১’শ কোটি টাকা
  • বদ্ধ নোনাপানি ও মাছ পঁচা দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ উপকূলবাসী
  • পঁচা মাছ কুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে মাটি চাপা 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত খুলনার কয়রাসহ ৫ উপজেলার মাছ চাষী। বেড়িবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে চিংড়ী ঘের, পুকুরের মাছ ও কাঁকড়ার খামার। মৎস্য বিভাগ বলছে, ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১’শ কোটি টাকা। কাজ চলছে ক্ষতিগ্রস্তদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরির। সম্ভাবনা রয়েছে আর্থিক সহায়তার।

খুলনার কয়রা উপজেলার দশহালিয়া গ্রামের বেড়িবাঁধ। গেল ২০ মে সুপার সাইক্লোন আম্পানের জলোচ্ছাসে ভেঙে পড়ে বাঁধটি।

এরপরই প্লাবিত হয় কয়েকটি গ্রাম, ভেসে যায় চিংড়ী ঘের, পুকুরের মাছ ও খামারের কাঁকড়া। লবণ পানির কারণে এরইমধ্যে মরে ভেসে উঠেছে অনেক মাছ।

এখনো তলিয়ে রয়েছে ৪৭টি গ্রামের সব ঘের ও পুকুর। কবে নাগাদ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে আর মাছ চাষ করতে পারবেন তা নিয়ে দু:চিন্তায় চাষীরা। এটাকে মৎসখাতে বড় ক্ষতি বলছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম।

মৎস্য বিভাগ হিসাব মতে, নদীর পানিতে কয়রা, দাকোপ, পাইকগাছা, ডুমুরিয়া ও বটিয়াঘাটা উপজেলায় প্লাবিত হয়েছে ৯ হাজার ১’শ ২৬ হেক্টর চিংড়ী ঘের, পুকুর ও কাঁকড়ার খামার।

সংশ্লিষ্ট বিভাগের তথ্য বলছে, খুলনার মৎস্য খাতে সব মিলিয়ে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১’শ কোটি টাকা।

এদিকে প্রলয়ঙ্কারী আস্ফানের তান্ডবে বেড়িবাঁধ ভেঙে ভেসে গেছে কয়রার মৎস্য ঘের-পুকুর। বদ্ধ নোনাপানি ও মনুষ্য আবর্জনায় মরছে মাছ। মাছ পঁচা দুর্গন্ধ চারিদিকে। খুলনার কয়রা উপজেলা সদর, উত্তর ও দক্ষিণ বেদকাশি এবং মহারাজপুর ইউনিয়নে পরিবেশ এমনি অবস্থা।

মঙ্গলবার এলাকাবাসী স্ব উদ্যোগে এসব মরা-পঁচা মাছ কুড়িয়ে মাটি চাপা দিয়েছে। ছবিটি উত্তর বেদকাশি দিঘিরপাড় এলাকার। গত ২০মে ঘুর্ণিঝড়ে কয়রার অন্তত ২৪ পয়েন্টের বেড়িবাঁধ ভেঙে নোনাপানিতে প্লাবিত হয়।


বেদকাশির বাসিন্দা আবু বক্কর সিদ্দিক মানিক বলেন, বেড়িবাঁধ ভেঙে এলাকার সর্বত্র নোনা পানি প্রবেশ করেছে। নোনাপানিতে মাছ মরে-পচে দূর্গন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয়রা এসব মাছ সংগ্রহ করে মাটি চাপা দিচ্ছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম বলেন, কিভাবে বেড়িবাঁধ সংস্কার করা যায় সেই চেষ্টায় রয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     সংশ্লিষ্ঠ আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
২৪৯,৫৯৮
সুস্থ
১৪৩,৮২৬
মৃত্যু
৩,৩০৬
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২,৯৭৭
সুস্থ
২,০৭৪
মৃত্যু
৩৯
স্পন্সর: একতা হোস্ট