আজ সোমবার, ১০ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দেশের ক্রীড়া জগতেও করোনার হানা

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশের ক্রীড়া জগতেও এবার হানা দিয়েছে করোনাভাইরাস। প্রথমে নাফিস ইকবাল, এরপর মাশরাফি বিন মর্তুজা, জাতীয় দলের বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপুর করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন।
বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ও নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গত তিন দিন ধরে জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন জাতীয় দলের এই ক্রিকেটার। জ্বরের পাশাপাশি শরীরে এবং মাথায় ব্যথা ছিল মাশরাফির। এই সমস্যা করোনাভাইরাসের আক্রমণে কিনা সেটি নিশ্চিত হতে গত শুক্রবার করোনা টেস্ট করান জাতীয় দলের এই ক্রিকেটার।

শনিবার রিপোর্ট আসে তাঁর কাছে। যেখানে জানানো হয়, করোনা পজেটিভ হয়েছে এই ক্রিকেটারের। মাশরাফি এখন মিরপুরে নিজের বাসায় আছেন। বাসায় সেলফ আইসোলেশনের ব্যবস্থা করেছেন এই ক্রিকেটার। এখানে থেকেই নেবেন যাবতীয় চিকিৎসাদি।

এদিকে বিকেলে এক ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে করোনায় আক্রান্ত মাশরাফি বিন মুর্তজা দেশবাসীর কাছে দোয়া চাইলেন। পাশাপাশি সচেতনতা বৃদ্ধির কথা বলেছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক।

শনিবার সন্ধ্যায় নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন মাশরাফি। নড়াইল এক্সপ্রেস লিখেছেন, ‘আজ আমার রেজাল্ট ঈঙঠওউ-১৯ পজিটিভ এসেছে। সবাই আমার জন্যে দোয়া করবেন যাতে খুব তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠতে পারি। আক্রান্ত সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আমাদের সবাইকে এখন আরো সতর্ক হতে হবে। সবাই ঘর থেকে বিনা প্রয়োজনে বের না হই। আমি বর্তমানে বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিয়ে যাচ্ছি এবং প্রয়োজনীয় বিধি নিষেধ মেনে চলছি। করোনা নিয়ে আতংক নয়, সচেতনতা বৃদ্ধি প্রয়োজন।’

এর আগে মাশরাফির শাশুড়ি ও স্ত্রীর বোন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন তারা। ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ অবশ্য তাদের সংস্পর্শে আসেননি। এমনকি দুই সপ্তাহ ধরে ঢাকার একটি বাসায় কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন তিনি। কিন্তু তাতেও করোনায় আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা পেলেন না ৩৬ বছর বয়সী পেসার।

করোনার বিরুদ্ধে শুরু থেকেই যুদ্ধ করছিলেন মাশরাফি। অসহায় ও দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন প্রবল চিত্তে। সাংসদ হওয়ার কারণে এমনিতেই অনেক দায়িত্ব তার কাঁধে। ব্যক্তিগত সাহায্যের পাশাপাশি চিকিৎসা খাতে সবচেয়ে বেশি শ্রম দিয়েছেন নড়াইল-২ আসনের সাংসদ। এজন্য দুই দফায় গিয়েছিলেন নড়াইলে। পাশাপাশি নিজের পছন্দের ব্রেসলেট নিলামে তুলে সেখান থেকে পাওয়া ৪২ লাখ টাকা মানুষের জন্য ব্যয় করেছেন। নিজের প্রতিষ্ঠিত নড়াইল ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম চলছে করোনার শুরু থেকেই।

নাজমুল ইসলাম অপু : করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন জাতীয় দলের বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অপু নিজেই। অপু বলেন, ‘আজকে করোনার ফলাফল পজিটিভ এসেছে আমার। কয়েকদিন আগে আমার বাবা অসুস্থ ছিলেন। তারটা পরীক্ষার পর পজিটিভ আসে। এরপর মাও আক্রান্ত হয়েছেন। পরে আমি টেস্ট করালে আজকে ফলাফল পজিটিভ এসেছে। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন।’
এর আগে সাবেক ক্রিকেটার নাফিস ইকবালের করোনা আক্রান্তের দুঃসংবাদ পাওয়া যায় শনিবার সকালেই। তিনি অবশ্য সুস্থ হয়ে উঠছেন বলে জানা গেছে। এরপর বিকেলে জানা যায়, বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সফলতম ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফিও করোনা পজিটিভ।

করোনার এই সময় দেশের ক্রিকেটাররা সমষ্টিগতভাবে এবং ব্যক্তি উদ্যোগে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। ব্যক্তি উদ্যোগের এই তালিকায় যোগ হয়েছিলেন নাজমুল হাসান অপুও। নিজ এলাকায় দুস্থ ও অসহায়দের খাদ্যসামগ্রী দিয়ে সহায়তা করেছেন তিনি। সতীর্থের এই অসাধারণ উদ্যোগের কথা জানিয়ে তাকে প্রশংসায় ভাসিয়েছিলেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল।

সম্প্রতি নিজ এলাকার অসহায়দের সাহায্যার্থে কাজ করে ফেরার পরই অসুস্থ বোধ করেন অপু। এরপর গত বুধবার করোনা পরীক্ষা করান। যার ফল হাতে পেয়েছেন গতকাল। তিনি বলেন, ‘গত সপ্তাহে দাতব্য কাজে এলাকায় গিয়েছিলাম। সেখান থেকে ফেরার পরই অসুস্থ বোধ করছিলাম। বুধবার টেস্ট করাই এবং আজ তার ফল পজিটিভ এসেছে। এখন আমি নিজের ঘরেই আইসোলেশনে আছি।’

সাবেক ক্রিকেটার নাফিস ইকবাল : কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক খেলোয়াড় নাফিস ইকবাল। শনিবার নাফিস নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জাতীয় ক্রিকেটে ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালের বড় ভাই ৩৫ বছর বয়সী নাফিস বর্তমানে চট্টগ্রামে নিজ বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। তিনি বলেন, ১০ দিন আগে জ্বর, শরীর ব্যথাসহ নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ দেখা যায় তার। দুই- তিন দিন জ্বর থাকায় নমুনা পরীক্ষা করাতে দেন। তাতে রেজাল্ট পজিটিভ আসে। “মাঝখানে কিছু দিন বেশি দুর্বল ছিলাম। মুখে স্বাদ ছিল না। আই অ্যাম ডুয়িং ওয়েল নাউ… এখন ভালো আছি। গেটিং বেটার। বাসায় আছি আইসোলেটেড আছি।”

তামিমের আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে ওপেনার হিসেবে খেলেছিলেন নাফিস, তবে নানা কারণে পূর্ণতা পায়নি তার সম্ভাবনা। বাংলাদেশের হয়ে ১১ টেস্ট ও ১৬ ওয়ানডে খেলেছেন নাফিস। টেস্টে সেঞ্চুরিও রয়েছে তার। ২০০৬ সালের পর আর জাতীয় দলে ফেরা হয়নি তার। ২০১৮ সালে ঘরোয়া ক্রিকেটে শেষবার মাঠে নামা নাফিস এখন ব্যস্ত ব্যবসা নিয়ে। পাশাপাশি নানা সময়ে বিভিন্ন দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করে আছেন ক্রিকেটের সঙ্গে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     সংশ্লিষ্ঠ আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
২৫৭,৫৪৭
সুস্থ
১৪৮,৩৭২
মৃত্যু
৩,৩৯৯
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২,৪৮৭
সুস্থ
১,৭৬৬
মৃত্যু
৩৪
স্পন্সর: একতা হোস্ট